বিদেশ যাওয়া আসার মধ্যে আছেন নির্বাচন কমিশনাররা

0
12

একের পর এক বিদেশ যাওয়া আসার মধ্যে আছেন নির্বাচন কমিশনাররা। প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা ভারত, রাশিয়া ও সংযুক্ত আরব আমিরাত সফর শেষে দেশে ফিরলেও এবার চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুর যাচ্ছেন নির্বাচন কমিশন মাহবুব তালুকদার ও রফিকুল ইসলাম।

আন্তর্জাতিক সম্মেলন শেষে মঙ্গলবার দেশে ফিরেছেন সিইসি। দেশে ফিরেই তিনি নির্বাচন কমিশনে গিয়ে নির্বাচন ভবন অগ্নিকাণ্ডের সার্বিক বিষয়ে খোঁজ-খবর নেন।

গত মাসে হজ পালনের জন্য সৌদি আরব গিয়েছিলেন সিইসি কে এম নূরুল হুদা। হজ করে আগস্টের শেষ সপ্তাহে দেশে ফিরেন তিনি। এরপর নির্বাচন সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক সম্মেলন ও প্রবাসী ভোটার নিবন্ধন বিষয়ক সভায় যোগ দিতে ২-১০ সেপ্টেম্বর দেশের বাইরে ছিলেন সিইসি।

প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভোটার করার জন্য সেপ্টেম্বরে সিঙ্গাপুরে কাজ শুরুর প্রক্রিয়া চলছে। এরমধ্যে সিইসি সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাত, নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম যুক্তরাজ্য, শাহাদাত হোসেন চৌধুরীর মালদ্বীপ সফরকালে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে প্রবাসীদের নিবন্ধন কার্যক্রম নিয়ে প্রাথমিক কাজ শেষ করেছেন।

দুবাইয়ের কনস্যুলেট জেনারেল হলরুমে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় সিইসি

ভারতের বেঙ্গালুরুতে ‘ফোর্থ জেনারেল এসেম্বলি অব এসোসিয়েশন ওয়ার্ল্ড ইলেকশন বডিস; রাশিয়ার মস্কোয় ‘ডিজিলাইটেশন অব ইলেকটোরাল প্রসেস, হিউমেনিটেরিয়ান ডাইমেনশন’ বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলন ছিল। দেশে ফেরার পথে দুবাইয়ে বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত ও সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে প্রবাসী ভোটার নিবন্ধন বিষয়ে সভা করেন কে এম নূরুল হুদা।

সিইসির একান্ত সচিব এ কে এম মাজহারুল ইসলাম জানান, সপ্তাহব্যাপী অনুষ্ঠান শেষে মঙ্গলবার দিবাগত রাত সোয়া ১২টায় দেশে ফিরেন সিইসি। বুধবার সকালেই অফিস করেন তিনি।

ইসি সূত্রে জানা গেছে, নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে যাচ্ছেন বুধবার। ১১-১৭ সেপ্টেম্বর সেখানে চিকিৎসা নেবেন এ নির্বাচন কমিশনার। দীর্ঘদিন ধরে ডায়াবেটিসসহ নানা জটিলতায় ভুগছেন তিনি। নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদারও মেডিক্যাল বোর্ডের পরামর্শে সিঙ্গাপুরে চিকিৎসা নিতে যাচ্ছেন। ১৫-৩০ সেপ্টেম্বর সিঙ্গাপুর যাবেন তিনি।

উল্লেখ্য, কে এম নূরুল হুদার নেতৃত্বে ৫ সদস্যের কমিশন পাঁচ বছরের জন্য ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে দায়িত্ব নেন। এ কমিশনের অন্যরা হলেন মাহবুব তালুকদার, রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম ও শাহাদত হোসেন চৌধুরী

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY