প্রেম, যৌন সম্পর্ক, ভিডিও ধারণ! এরপর…

0
21

এক কলেজছাত্রীর আপত্তিকর ভিডিও ধারণ করে একদল বখাটে। সেই আপত্তিকর ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীর পরিবারের কাছ থেকে গত প্রায় ৭ মাস ধরে টাকা আদায় করছিল বখাটের দল।

ঢাকার পার্শ্ববর্তী এলাকা ধামরাইয়ে চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি ঘটেছে।

অবশেষে ওই কলেজছাত্রীর মা বাদী হয়ে এ ঘটনায় ওই বখাটেদের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনে বুধবার (১১ জুলাই) ধামরাই থানায় মামলা করেছেন। কিন্তু, এই মামলা দায়েরের আগেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আপত্তিকর ভিডিওটি ছড়িয়ে দিয়েছে বখাটেরা।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগী ওই কলেজছাত্রীর সঙ্গে একই এলাকার লিটন (২১) নামের এক
কলেজছাত্র প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে মেয়েটির সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তোলে প্রেমিক লিটন। এ সময় লিটনের দুই সহযোগী আক্তার ও সেলিম নামে দু’জন গোপনে সেই যৌন সম্পর্কের ভিডিও ধারণ করে। এরপর থেকেই মেয়েটির পরিবারকে লিটন ও তার সহযোগীরা আপত্তিকর ভিডিও মুঠোফোন ও ইন্টারনেটের মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখাতে শুরু করে। আর এভাবেই গত সাত মাসে বিভিন্ন সময় ওই কলেজছাত্রীর পরিবারের কাছ থেকে টাকা আদায় করে আসছিল বখাটেরা।

কিন্তু, বুধবার (১১ জুলাই) এ বিষয়টি নিয়ে ওই কলেজছাত্রীর পরিবার স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমানের কাছে যায়। এসময় হাবিবুর রহমান চেয়ারম্যান এ ব্যাপারে থানায় মামলা করার পরামর্শ দেন। ওই দিন রাতে মেয়েটির মা বাদী হয়ে ধর্ষণের অভিযোগ এনে লিটনসহ আরও পাঁচজনের নামে থানায় মামলা দায়ের করেন।

ওই কলেজছাত্রীর মায়ের দাবি, ‘বখাটে লিটন তার মেয়েকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তোলে এবং ভিডিও ধারণ করে। পরে সেই ভিডিও এলাকায় ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে সোনার চেইনসহ নগদ টাকা নেয়। এরই মধ্যে লিটন ও তার সহযোগীরা মুঠোফোনের মাধ্যমে এলাকায় সেই ভিডিওটি ছড়িয়ে দিয়েছে।’

এ বিষয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ধামরাই থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ভজয় রায় জানান, ‘এ ঘটনায় ধর্ষণের অভিযোগে ধামরাই থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। অভিযুক্ত লিটন পলাতক থাকায় তাকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি।’

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY