পাগল ছেলের মর্মান্তিক ঘটনার শিকার বাবা-মা!

0
77

ছবি : প্রতীকী

সাভার ধামরাইয়ের রোয়াইল ইউনিয়নের খরারচর গ্রামে মাকে কুপিয়ে হত্যার পর বাবা-ছেলের মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। যা খুবই মর্মান্তিক একটি ঘটনা।

গত রোববার মানসিক ভারসাম্যহীন ছেলে রায়হান (২০) কারাগারে অসুস্থ হয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে এবং বাবা বাছের মিয়াও (৬৫) ছেলের দায়ের কোপে গুরুতর আহত হয়ে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। এর আগে গত ২৯ জুলাই ওই ছেলের হাতেই নির্মমভাবে খুন হন মা। মাসখানের ব্যবধানে একই পরিবার থেকে ৩ জনের মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে ওই গ্রামে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ধামরাইয়ের খরারচর গ্রামের আব্দুল বাছের মিয়ার পুত্র রায়হান (১৮) বছর দুয়েক আগে স্থানীয় খরারচর আলিয়া মাদরাসায় পড়াকালীন সময়ে হঠাৎ করে মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে। যদিও মাঝে মধ্যে সে সুস্থও হয়ে যেত।

কিন্তু, গত ২৯ জুলাই ভোর রাতে ঘুমন্ত অবস্থায় রায়হান প্রথমে তার মা জামিলা বেগমকে (৫৫) নির্মমভাবে গলাকেটে হত্যা করে। এ সময় জামিলা বেগমের চিৎকার-চেচামেচি শুনে তার বড় ভাই রতন মিয়া (২৪) ও বাবা বাছের মিয়া ঘুম থেকে উঠে রায়হানকে থামাতে গেলে তাদেরকেও কুপিয়ে জখম করে সে।

পরে স্থানীয়রা গুরুতর অবস্থায় ৬৫ বছর বয়ষী বাছের মিয়া ও তার ছেলে রতন মিয়াকে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। এরপর পাশাপাশি এলাকাবাসী রায়হানকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে।

দুদিন চিকিৎসা নিয়ে রতন মিয়া হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফেরেন কিন্তু তার বাবা বাছের মিয়া হাসপাতালে ১ মাস ১০ দিন চিকিৎসার পর গত রোববার মারা যান। এরপরই নিহতের অন্য ছেলেরা খবর পান কারাগারে অসুস্থ হওয়ার পর রায়হানকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। সোমবার (১০ সেপ্টম্বর) সকালে নিহত রায়হানের মরদেহ ঢাকা থেকে নিয়ে আসা হয়ে।

এ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই কামাল হোসেন বাবা বাছের মিয়া ও ছেলে রায়হানের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY