দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাজেট আজ

0
25

বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাজেট ঘোষণা করতে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ সরকার। এবার নিয়ে ২১তম বাজেট ঘোষণা করতে যাচ্ছে স্বাধীনতা নেতৃত্বদানকারী দলটি। আর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকারের এটা ১৭’তম বাজেট। প্রায় সোয়া পাঁচ লাখ কোটি টাকা ব্যয়ের ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপন করতে যাচ্ছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশনে বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) বিকাল ৩টা থেকে বাজেট উপস্থাপন শুরু করবেন তিনি। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের প্রথম বাজেট হলেও আওয়মী লীগ সরকারের ২১তম বাজেট ঘোষাণা করতে যাচ্ছেন বর্ষীয়ান এই নেতা।

প্রসঙ্গত, দীর্ঘ ৯ মাস রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের পর বাংলার আকাশে ওঠে স্বাধীনতার সূর্য। আর স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে শুরু হয় স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণ। আর এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৭২-৭৩ অর্থবছরে গণপরিষদে উপস্থাপন করা হয় বাংলাদেশের ইতিহাসের প্রথম বাজেট।

এদিকে, ২০০৮ সালের জাতীয় নির্বাচনের পর তৎকালীন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত ২০০৯-১০ থেকে ২০১৮-১৯ টানা ১০ অর্থবছর বাজেট পেশ করেছেন। গত বছরের ৭ জুন মুহিত ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জন্য ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার সবশেষ বাজেট পেশ করেন।

টানা তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকার সংসদে ২০১৯-২০ অর্থবছরের জন্য দেশের ইতিহাসে সর্ববৃহৎ জাতীয় বাজেট প্রস্তাব করতে যাচ্ছে।

গত জানুয়ারিতে অর্থ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পাওয়া মুস্তফা কামাল আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে সংসদ ভবনে মন্ত্রিসভার বিশেষ বৈঠক এবং রাষ্ট্রপতির অনুমোদন শেষে ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকার বাজেট তুলে ধরবেন। যা সার্বিকভাবে দেশের ৪৮তম এবং আওয়ামী লীগ সরকারের ২১তম বাজেট হতে যাচ্ছে।

আগামী অর্থবছরের জন্য রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৭৭ হাজার ৮১০ কোটি টাকা, যা বিদায়ী অর্থবছরের তুলনায় ১৭.৯২ শতাংশ বেশি।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) ৩ লাখ ২৫ হাজার ৬০০ কোটি টাকার রাজস্ব আহরণের দায়িত্ব পাচ্ছে। এনবিআর-বহির্ভূত রাজস্বের লক্ষ্যমাত্রা সাড়ে ১৪ হাজার কোটি টাকা। কর-বহির্ভূত খাত থেকে আহরণ করা হবে ৩৭ হাজার ৭১০ কোটি টাকা। আর বিদেশি অনুদান হিসেবে আসবে ৪ হাজার ১৬৮ কোটি টাকা।

সবচেয়ে বেশি ৬৯ হাজার ২৬০ কোটি টাকা ব্যয় হবে সরকারি কর্মীদের বেতন-ভাতার পেছনে। উন্নয়ন বাজেট হবে ২ লাখ ২ হাজার ৭২১ কোটি টাকা, যা বিদায়ী অর্থবছরের তুলনায় ২১.৩৮ শতাংশ বেশি।

বাজেটে থাকা ঘাটতি ১ লাখ ৪১ হাজার ২১২ কোটি টাকা পূরণে সরকার বিদেশি উৎস থেকে ৬৩ হাজার ৮৪৮ কোটি এবং দেশি উৎস থেকে ৭৭ হাজার ৩৬৩ কোটি টাকা ঋণ নিতে যাচ্ছে।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY