যে কারণে হজ শেষে যুক্তরাষ্ট্র যান সাকিব

0
23

সাকিব আল হাসান এবার হজ পালন করতে সৌদি আরব গিয়েছিলেন। এর মাঝেই জাতীয় দলের এশিয়া কাপের ক্যাম্প শুরু হয়ে যায়। তবে সাকিব হজ শেষে এশিয়া কাপের ক্যাম্পে যোগ না দিয়ে সোজা চলে যান যুক্তরাষ্ট্রে। সেখানে গিয়েছিলেন এক বিশেষ কাজে। যা বাংলাদেশি ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়াতে তেমন প্রচার হয়নি, সাকিব নিজেও প্রচার করেননি।

দারুল উলম নিউইয়র্ক যুক্তরাষ্ট্রের একটি মাদ্রাসা। ইসলামিক শিক্ষার পাশাপাশি অনেক দরিদ্র ও অনাথ মুসলিম সন্তানদের বিনামূল্যে/নাম মাত্র খরচে হাফেজ হওয়ার শিক্ষাও দেয়া হয় এখানে। এর জন্য তহবিল সংগ্রহের উদ্দেশ্যে একটি নৈশভোজের আয়োজন করা হয় সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহে আমেরিকার দুই শহর নিউইয়র্কে ( ১লা সেপ্টেম্বর) ও নিউজার্সিতে ( ২রা সেপ্টেম্বর)।

অনুষ্ঠানে বিশিষ্ট ইসলামিক বক্তা ছাড়াও আমন্ত্রণ করা হয় পাকিস্তানি সাবেক স্পিনার সাকলাইন মুশতাক ও বাংলাদেশি অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে। মাসখানেক আগেই সাকিবকে এই মহৎ কাজের জন্য হতে যাওয়া অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ করা হয়, সাকিবও তাতে রাজি হয়ে যান। এই অনুষ্ঠানে যাওয়ার জন্যই সাকিব প্রস্তুতি ক্যাম্পে যোগ না দিয়ে সরাসরি যুক্তরাষ্ট্রে যান। গত ১ সেপ্টেম্বরের ওই অনুষ্ঠানে সাকিব কিছুক্ষণ বক্তব্য দেন।

সাকিব বলেন, হজ থেকে সরাসরি এখানে আসার বড় উদ্দেশ্য ছিল যদি এই ভালো কাজের জন্য কিছু সাহায্য ও কন্ট্রিবিউট করতে পারি। আমার ইসলামিক জ্ঞান তেমন বেশি নেই তাই বেশি কিছু বলতে পারব না, তবে আমি বিশ্বাস করি একজন ভালো মুসলিম হওয়ার জন্য যা করা উচিত তা কাজে প্রমাণ করতে হবে। সেটা হতে পারে নামাজ পড়া, অন্যকে সাহায্য করা আরও অনেক কিছু।’

সাকিব আরও বলেন, আমার প্ল্যান ছিল না এ বছর হজ করার, সিপিএল খেলার কথা ছিল। এই বছর আমার সিপিএলের চুক্তি ছিল ১ লাখ ৩০ হাজার ডলারের। কিন্তু সিপিএলের কিছুদিন আগে আমাকে সৌদি দূতাবাস থেকে ফোন দিয়ে জানানো হয় আপনাকে আমরা হজের জন্য আমন্ত্রণ জানাতে চাচ্ছি, আমিও তাতে রাজি হয়ে যাই। আমি এটা বলে একটা জিনিস বোঝাতে চাচ্ছি যে আমার বিশ্বাস ভালো কাজের জন্য কিছু স্যাক্রিফাইস করলে তা কখনোই বৃথা যাবে না। ইসলামে সন্দেহ করার সুযোগ নেই। আপনি যদি মন থেকে বিশ্বাস করেন এই জিনিস গুলো হবেই তাহলে তা হয়ই। আমি নিজেই এর প্রমাণ, আমি এমন কিছু সিচুয়েশনে পড়েছি আগেও তবে আমি তখন মন থেকে বিশ্বাস রেখেছি না এটা হবেই, এটা সম্ভব এবং আসলেই আল্লাহ এটা সহজ করে দেন।

সাকিব বলেন, আপনারা সকলেই এই প্রতিষ্ঠানটির জন্য কন্ট্রিবিউট করবেন। সকলে মিলে সাহায্য করলে এটি প্রতিষ্ঠানের জন্য ভালো একটি বিষয় হবে। ইনশাআল্লাহ আমরা এই প্রতিষ্ঠানকে তাদের এই মহৎ কাজের জন্য সাহায্য করতে পারবো।

সাকিব বর্তমানে আরব আমিরাতে আছেন বাংলাদেশ দলের সাথে। এবারের এশিয়া কাপে ১৫ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশের প্রথম ম্যাচ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY