বাংলাদেশে ঢুকেই সন্তান জন্ম দিচ্ছেন মিয়ানমারের বৌদ্ধ নারীরা

0
11

মিয়ানমার থেকে রোহিঙ্গাদের পর এবার সাধারণ বৌদ্ধ ও উপজাতিদের তাড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে বান্দরবানের রুমা উপজেলায় প্রাংসা সীমান্তে জিরোল্যান্ডে থাকা মিয়ানমারের বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ২০৩ শরণার্থীকে বাংলাদেশে ঢুকিয়েছে মিয়ানমারের সশস্ত্র বিদ্রোহী সংগঠন আরাকান আর্মি।

গত শনিবার (৯ ফেব্রুয়ারি) প্রথম দফায় ১৬৩ জন এবং দ্বিতীয় দফায় বুধবার ৪০ জনকে নিয়ে আসে আরাকান আর্মির সদস্যরা। এমন তথ্য জানিয়েছেন রুমা উপজেলার স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা জানান, মিয়ানমারের শান, কাচিন ও আরাকানের বিভিন্ন স্থানে দেশটির সেনাবাহিনীর সঙ্গে আরাকান আর্মির সংঘাত চলছে। প্রধান সংঘর্ষস্থল হলো শান রাজ্যের পালিতওয়া এলাকা। সংঘাতময় পরিস্থিতিতে নিরাপত্তাহীনতার কারণে প্রাণ বাঁচানোর জন্য মিয়ানমারের বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ২০৩ শরণার্থীকে বাংলাদেশে নিয়ে আসে আরাকান আর্মি। সংঘর্ষস্থল থেকে প্রায় তিন দিন হেঁটে বান্দরবানের রুমা উপজেলায় আশ্রয় নেয় বৌদ্ধ শরণার্থীরা।

রুমা উপজেলার রেমাক্রি প্রাংসা ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের মেম্বার ভান লং বম বলেন, জিরোল্যান্ডে থাকা বৌদ্ধ শরণার্থীদের আরাকান আর্মির সদস্যরা বাংলাদেশের সীমান্ত পেরিয়ে রুমার চেইক্ষ্যংপড়ায় নিয়ে আসে। কি জন্য তাদের এখানে এনেছে আমরা তা এখনো জানতে পারিনি।

স্থানীয় সূত্র জানায়, মিয়ানমার থেকে আসার পর বৌদ্ধ শরণার্থীরা খোলা জায়গায় অবস্থান করছেন। প্রচণ্ড শীতে ভুগছেন তারা। তাদের খাদ্য সরবরাহ করছেন ওই এলাকার গরিব স্থানীয়রা। খাদ্য হিসেবে শরণার্থীরা দিনে ভাত, পাহাড়ি আলু ও কলাগাছের বাকলসহ বিভিন্ন লতাপাতা রান্না করে ক্ষুধা নিবারণ করছেন। অনেকটা একজনের খাবার চার-পাঁচজন মিলে ভাগ করে খাচ্ছেন। এরই মধ্যে তিনজন বৌদ্ধ নারী চেইক্ষ্যংপাড়ায় সন্তান প্রসব করেছেন।

এ ব্যাপারে রুমার রেমাক্রি প্রাংসা ইউনিয়নের মেম্বার সাংকিং বম বলেন, আরাকান আর্মির সদস্যরা অনেকটা গার্ড দিয়ে বৌদ্ধ শরণার্থীদের বাংলাদেশে নিয়ে আসে। তাদের খাবার সরবরাহ করছে স্থানীয়রা। এরই মধ্যে কয়েকজন নারী বাংলাদেশে ঢুকেই সন্তান প্রসব করেছেন।

এ বিষয়ে রুমা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামসুল আলম বলেন, রুমার চেইক্ষ্যংপাড়া সীমান্তে বিজিবি ও সেনা সদস্যদের পাঠানো হয়েছে। তারা ফিরলেই আমরা শরণার্থীদের বিষয়ে পদক্ষেপ নেব।

বান্দরবানের জেলা প্রশাসক মো. দাউদুল ইসলাম বলেন, আরাকান আর্মি গার্ড দিয়ে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের শরণার্থীদের বাংলাদেশে নিয়ে আসার বিষয়টি আমার জানা নেই। আমার কাছে আরাকান আর্মির কোনো তথ্য নেই।

তবে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ বিজিবির দাবি, মিয়ানমারের বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী নাগরিকরা বাংলাদেশ সীমান্ত থেকে এখনও প্রায় দুই কিলোমিটার দূরে রয়েছে।

এ বিষয়ে বান্দরবান বিজিবি সেক্টর কমান্ডার কর্নেল জহিরুল ইসলাম খান জানান, মিয়ানমারের চীনরাজ্য থেকে পালিয়ে আসা নাগরিকরা বাংলাদেশ সীমান্ত থেকে প্রায় দুই কিলোমিটার দূরে নোম্যান্স ল্যান্ডে রয়েছে।

সীমান্তে আশ্রয় নেয়া পরিবারের সংখ্যা ৩৭টি। শিশু-নারী এবং পুরুষ মিলে সদস্য সংখ্যা হচ্ছে ১৩৬ জন। স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জিরা বম বলেন, বৃহস্পতিবার সীমান্তবর্তী চাইক্ষিয়াং পাড়াসহ আশপাশের এলাকাগুলোতে বিজিবি সদস্যরা হেলিকপ্টারে টহল দিয়েছেন।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY