ফিরে গেলেও রোহিঙ্গাদের বন্দিদশায় থাকতে হবে

0
15
ফিরে গেলেও রোহিঙ্গাদের বন্দিদশায় থাকতে হবে
ফিরে গেলেও রোহিঙ্গাদের বন্দিদশায় থাকতে হবে

রোহিঙ্গাদের বসতভিটা একেবারে ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। ঘরবাড়ি পুরোপুরি পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। ফসল ও গ্রামও পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে, যাতে রোহিঙ্গারা আর ফিরে যেতে না পারে।

বুধবার জাতিসংঘের মানবাধিকার সংস্থা এভাবেই মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশের বর্ণনা দিয়েছে।

এশিয়া এবং প্যাসিফিক রিজিয়নের প্রধান জ্যোতি সাঙ্গেরা আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেছেন, রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরার অবস্থা রাখা হয়নি। যদি তারা বাংলাদেশ থেকে নিজদেশে ফিরেও যায়, তাহলেও তাদের বন্দিদশার মধ্যে থাকতে হবে।

তিনি এসময় মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সুচকে সহিংসতা বন্ধের আহ্বান জানান।

জ্যোতি সাঙ্গেরা এক নিউজ ব্রিফিংয়ে বলেন, যদি রোহিঙ্গাদের গ্রাম একবারে ধ্বংস করে দেওয়া হয় এবং তা যদি বসবাসের অযোগ্য করে রাখা হয়, তাহলে রোহিঙ্গাদের শরণার্থী শিবিরেই থাকতে হবে। যদি তারা দেশে ফিরেও যায়, তাহলেও তাদের বন্দিদশার মধ্যে থাকতে হবে।

এদিকে, জাতিসংঘের রাজনৈতিক বিষয়ক প্রধান জেফ্রি ফেল্টম্যানের আগামী শুক্রবার মিয়ানমার সফরের কথা রয়েছে বলে জাতিসংঘের মুখপাত্র স্টেফেন দুজারিক জানিয়েছেন।

৬৫ জন শরণার্থীর সাক্ষাৎকারের ভিত্তিতে জাতিসংঘের প্রতিবেদন বলা হয়,২৫ আগস্ট একযোগে হামলার আগেই রাখাইনে জাতিগত নির্মূলের অভিযান শুরু হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী পরিকল্পিতভাবেই রাখাইন প্রদেশে রোহিঙ্গাদের সম্পত্তি ধ্বংস করেছে। তারা শুধু রোহিঙ্গাদের বিতাড়নই করেনি, যাতে তারা আর ফিরে যেতে না পারে, সে জন্য তাদের ঘরবাড়ি একেবারে পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে। তাদের গ্রাম ধ্বংস করা হয়েছে। ফসলি জমি নষ্ট করা হয়েছে।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY