তাইওয়ানে ১৮০ কোটি ডলারের অস্ত্র বিক্রি অনুমোদন যুক্তরাষ্ট্রের

0
14

তাইওয়ানের কাছে প্রায় ১৮০ কোটি ডলারের অস্ত্র বিক্রির অনুমোদন দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। গতকাল বুধবার পেন্টাগন এই তথ্য নিশ্চিত করেছে। স্বায়ত্ত্বশাসিত তাইওয়ানকে অনেকদিন ধরেই নিজেদের অংশ হিসেবে দাবি করে আসছে চীন। ফলে অস্ত্র বিক্রির এই সিদ্ধান্তের পর চীনের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের উত্তেজনা আরও বাড়তে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

পেন্টাগন বলছে, চুক্তি অনুযায়ী তিন ধরনের অস্ত্র ব্যবস্থা তাইওয়ানের কাছে বিক্রি করা হবে। এর মধ্যে রয়েছে রকেট লঞ্চার, সেন্সরস ও আর্টিলারি।

তাইওয়ানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়েন ডে-ফা এই অস্ত্র চুক্তিকে স্বাগত জানিয়েছেন। তিনি মন্তব্য করেন, চীনের সঙ্গে অস্ত্রের লড়াইয়ে অংশ নিতে চায়নি তাইওয়ান, তবে তাইওয়ানের সামরিক সক্ষমতা প্রয়োজন।

তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলছে, যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে কেনা এসব অস্ত্র বিশ্বাসযোগ্য লড়াইয়ের সক্ষমতা তৈরি এবং সামঞ্জস্যপূর্ণ যুদ্ধের উন্নয়নকে দৃঢ় করবে।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে তাইওয়ানের সঙ্গে চীনের উত্তেজনা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পেয়েছে। চুক্তি অনুযায়ী, টার্গেটে নির্ভুল আঘাত হানতে সক্ষম ক্রুজ মিসাইল ১৩৫, যুদ্ধবিমানের সঙ্গে যুক্ত থাকতে সক্ষম মোবাইল লাইট রকেট লঞ্চার ও এয়ার রিকনেইস্যান্স পড কিনবে তাইওয়ান।

চীনের কমিউনিস্ট বিপ্লবের পর ১৯৪৯ সালে তাইওয়ান চীন থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। তাইওয়ান নিজেকে একটি দেশ হিসেবে বিবেচনা করে। তবে চীন তাইওয়ানকে তাদের বিদ্রোহী একটি প্রদেশ হিসেবে মনে করে।

গত কয়েক মাস ধরে তাইওয়ানে নিজেদের সংশ্লিষ্টতা ব্যাপক বৃদ্ধি করেছে যুক্তরাষ্ট্র। কয়েক দশকের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পদমর্যাদার একজন রাজনৈতিক প্রতিনিধি হিসেবে স্বাস্থ্য ও মানব সেবা বিষয়ক মন্ত্রী অ্যালেক্স আজার গত আগস্টে তাইওয়ান সফরে যান।

গত সপ্তাহে মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা রবার্ট ও ব্রায়েন বলেন, তাইওয়ানে আক্রমণের জন্য চীন প্রস্তুত বলে মনে করেন না তিনি। তবে ভবিষ্যতের জন্য দ্বীপটিকে নিজেদের শক্তিশালী করা দরকার বলে মন্তব্য করেন তিনি।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY