গুহাবন্দি ফুটবলাদের উদ্ধারে মিলল চাঞ্চল্যকর তথ্য!

0
26

গুহায় আটকে পড়া ১২ কিশোর ফুটবলার ও তাদের কোচকে দীর্ঘ ১৮ দিন পর উদ্ধার করে সুদক্ষ ডুবুরি দল। তাদেরকে উদ্ধারে অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ ও শ্বাসরুদ্ধকর এক উদ্ধার অভিযান চালায় থাই সরকার। মঙ্গলবার (১০ জুলাই) তাদের উদ্ধার করতে সক্ষম হয় ১৮ সদস্য বিশিষ্ট ডুবুরি দল। তাদের এ অভিযানে সময় লাগে তিন দিন। উদ্ধার অভিযানটি যে কতটা ভয়াবহ ও ঝুঁকিপূর্ণ ছিল, শুধু বাইরের চিত্র দেখেই তা বোঝা গেছে।

তবে অভিযানের সব প্রকিয়া বেশ গোপন রাখা হয়। পুরো প্রকিয়াটি ছিলো রহস্যজনক। কিন্তু সবশেষ ফাঁস হলো এক নতুন তথ্য, যেখান থেকে জানা যায়, ঘুম পাড়িয়ে বের করা হয়েছিলো গুহাবন্দি কিশোর ফুটবলাদের। তবে এর আগে বলা হয়েছিলো শিশুরা সাঁতরেই বের হবে।

থাইল্যান্ডের নৌবাহিনীর সিল কমান্ডার রিয়ার অ্যাডমিরাল আর্পাকর্ন ইউকংকায়েও জানান, কিশোরদের খুঁজে পাওয়ার আশা ছিল একেবারে তলানিতে, কিন্তু হাল ছাড়েনি কেউ। পানির ঘোলাটে ভাব একটু কমতে থাকায় অন্য সব বাধা পেরিয়ে ব্রিটিশ অভিযাত্রী জন ভোলান্দেন ৯ দিন পর যখন কিশোরদের দেখা পান, তখন তাদের উদ্ধারের প্রক্রিয়া নিয়ে শুরু হয় আরেক দুশ্চিন্তা। কারণ তাদের বের করে আনার জন্য বিকল্প নিরাপদ পথ পাওয়া যাচ্ছিল না।

ঘোলা পানিতে ডুবে থাকা সরু পথ বেয়ে যখন কিশোররা বেরিয়েছে, তখন তাদের মনের অবস্থা কেমন হয়েছিল, তা নিয়ে বিশ্ববাসীর কৌতূহলের শেষ নেই। সেই গোমর ফাঁস করেছেন খোদ থাইল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট প্রায়ুত চ্যান ও চা।

তিনি জানিয়েছেন, কিশোরদের ‘হালকা মাত্রায় ট্রাংকুইলাইজার’ দেওয়া হয়েছিল। আর সাবেক সিল কমান্ডার চাইয়ানান্তা পিরানারং স্পষ্ট করেই জানিয়েছেন, উদ্ধারের পুরো রাস্তাটা ঘুমিয়ে ছিল কিশোররা।

প্রসঙ্গত, মিয়ানমারের সঙ্গে সীমান্তের কাছে ১০ কিলোমিটার দীর্ঘ থাম লুয়াং গুহা থাইল্যান্ডের দীর্ঘতম গুহা। কম চওড়া আর অনেক প্রকোষ্ঠ থাকায় গুহার ভেতরে চলাচল করা কঠিন। ওই গুহায় ঢোকার পর গত ২৩ জুন নিখোঁজ হয় ১২ খুদে ফুটবলার ও তাদের কোচ। খুদে ফুটবলারদের বয়স ১১ থেকে ১৬ বছরের মধ্যে। আর তাদের সহকারি কোচ এক্কাপোল জানথাওংয়ের বয়স ২৫ বছর। তারা মু পা নামের একটি ফুটবল দলের সদস্য। নয় দিন সেখানে আটকে থাকার পর ২ জুলাই ব্রিটিশ ডুবুরি রিচার্ড স্ট্যানটন ও জন ভলানথেন তাদের সন্ধান পান।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY