লঙ্কান বোর্ডের অনড় অবস্থানে নতুন জটিলতায় বিসিবি

0
5

শ্রীলঙ্কা থেকে কি কোনো খবর এসেছে? লঙ্কান বোর্ড কি কোয়ারেন্টাইনে থাকার ব্যাপারে কঠোর অবস্থান থেকে সরে নমনীয় হয়েছে? গতকাল (মঙ্গলবার) রাত কিংবা আজ সকালে কি কোনো পজিটিভ আপডেট আছে?

এ মুহুর্তে দেশের ক্রিকেট ভক্ত, সমর্থক ও অনুরাগীদের মনে ঘুরে ফিরে সেই কৌতুহলি প্রশ্ন। এ প্রশ্নের উত্তর খুঁজতেই আজ (বুধবার) ঘড়ির কাঁটা ১২টা ছোঁয়ার কয়েক মিনিট আগে জাগো নিউজের পক্ষ থেকে ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান আকরাম খানের কাছে ফোন।

কিন্তু বিসিবি পরিচালক ও জাতীয় দল ব্যবস্থাপনা কমিটি প্রধান কোনো সুখবর দিতে পারলেন না। কি করে দেবেন? ভালো খবর বহুদূরে, লঙ্কান বোর্ড যে এখন পর্যন্ত কোনো কিছুই জানায়নি। আকরামে খানের জবাব, ‘নাহ, কোনো খবর নাই। লঙ্কান বোর্ড এখনও কিছু জানায়নি।’

ঐ ছোট্ট কথার মানে কিন্তু অনেক বড়। তার মানে বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান পাপনের কথা সেভাবে কোনো প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করেনি লঙ্কানদের মনে। যদিও লঙ্কান ক্রীড়ামন্ত্রীর টুইট দেখে প্রথমে মনে হচ্ছিল, তাদের বোর্ড হয়তো নিজেদের অবস্থান থেকে সরে আসতে পারে।

কিন্তু লঙ্কান বোর্ড প্রধান শাম্মি সিলভা বলেই দিয়েছেন, ৭ দিনের নয়, শ্রীলঙ্কা সফরে ১৪ দিনে কোয়ারেন্টাইনেই থাকতে হবে টাইগারদের। ফলে এখনও অনিশ্চয়তার দোলাচালে দুলছে বাংলাদেশ দলের শ্রীলঙ্কা সফর।

এদিকে সফর অনিশ্চিত হওয়ায় খানিক বিপাকে বিসিবি মেডিক্যাল কমিটি। শ্রীলঙ্কা সফরকে সামনে রেখে ক্রিকেটার, কোচিং স্টাফ, সাপোর্টিং স্টাফ, চিকিৎসক, বল বয়, টিম বয়সহ সংশ্লিষ্ট সবার আরও তিন দফা করোনা টেস্ট করানোর কথা। ১৮ সেপ্টেম্বর আবার সব ক্রিকেটারের বাড়ি বাড়ি গিয়ে এবং ভিনদেশি কোচিং স্টাফদের হোটেলে কোভিড-১৯ পরীক্ষা করানোর কথা ছিল।

জাতীয় দলের আনুষ্ঠানিক প্রস্তুতির আগে সেটিই প্রথম ধাপ। কথা ছিল ঐ টেস্টে নেগেটিভরাই শুধু জাতীয় দলের টিম হোটেলে উঠতে পারবেন এবং তাদের নিয়েই ২১ সেপ্টেম্বর অনুশীলন শুরু হবে। কিন্তু বর্তমান প্রেক্ষাপটে তা সময়মত হবে কিনা সন্দেহ।

আজ জাগো নিউজের সাথে একান্ত আলাপে ঐ করোনা টেস্ট নিয়ে কথা বলতে গিয়ে বিসিবির প্রধান চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী সংশয়ের কথা জানান। দেবাশীষ বলেন, ‘আমরা তাকিয়ে আছি ক্রিকেট অপারেশন্সের দিকে। তারা দল ঘোষণা করলে আমরা সেই তালিকা অনুযায়ী ক্রিকেটারদের বাসার ঠিকানা ও লোকেশন দিয়ে দিতাম। বারডেম এক্সপার্টরা সবার করোনা টেস্ট করানোর কাজ করে আসবে। কিন্তু এখন পর্যন্ত তো দলই ঘোষণা হয়নি।’

দেবাশীষ চৌধুরীর অনুমান, দল ঘোষণায় এই বিলম্বের কারনে তারা যে শ্রীলঙ্কা যাবার আগে ১৮, ২১ আর ২৪ সেপ্টেম্বর তিন দফা করোনা টেস্ট করানোর পরিকল্পনা করে রেখেছিলেন, সেটা নাও হতে পারে।

বিসিবির প্রধান চিকিৎসকের ভাষায়, ‘কথা ছিল ১৮ সেপ্টেম্বর টেস্ট হবে সবার। ১৯ তারিখ রিপোর্ট মিলবে। যারা নেগেটিভ হবে তারা সবাই ২০ সেপ্টেম্বর হোটেলে উঠবে। যেহেতু আজ পর্যন্ত দল ঘোষণা হয়নি বা আমরাও খেলোয়াড় তালিকা পাইনি, তাই এখন মনে হচ্ছে ১৮ সেপ্টেম্বর প্রথম করোনা টেস্ট নাও হতে পারে।’

তিনি যোগ করেন, ‘১৮ তারিখ টেস্ট না হলে শ্রীলঙ্কা সফরের আগে যে আরও দুই দফা টেস্ট করানোর পরিকল্পনা করে রেখেছিলাম, সেটা নিয়েও জটিলতা দেখা দিতে পারে। কারণ আমরা আগে ঠিক করে রেখেছিলাম, ১৮ ‘র পর দ্বিতীয় টেস্ট হবে ২১ আর তৃতীয় ও সর্বশেষ টেস্ট করানো হবে ২৪ সেপ্টেম্বর। কিন্তু খেলোয়াড় তালিকা না পেলে প্রথম টেস্ট যদি যথাসময়ে না হয়, তাহলে বাকি টেস্টের মাঝখানের সময়টা কমে যাবে। এখন ২০ তারিখে করোনা টেস্ট করলে রিপোর্ট আসবে ২১ সেপ্টেম্বর। সেইদিন তো আর পরের ধাপের টেস্ট করানো সম্ভব না।’

আসলে ঐ তিন ধাপ করোনা টেস্টও কিন্তু শ্রীলঙ্কা যাওয়ার আগে ক্রিকেটার, কোচিং স্টাফ ও সাপোর্টিং স্টাফদের কোনো ঝুঁকি আছে কি না, তা জানার জন্যই করার কথা ছিল। এখন যেখানে সফরই অনিশ্চিত, শেষ পর্যন্ত কি হয় সেটাই দেখার।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY