কিম জং উনের সঙ্গে রডম্যানের বন্ধুত্ব, মদ আর নারীই যার ভিত্তি

0
22

মার্কিন যুক্তরাষ্টের বিখ্যাত বাস্কেটবল খেলোয়াড় ডেনিস রডম্যান। মার্কিন মুলুকের এনবিএ লিগে হল অব ফেমে জায়গা করে নিয়েছেন সাবেক এই বাস্কেটবল তারকা। বিস্ময়কর তথ্য হচ্ছে, মার্কিন এই এনবিএ তারকার সঙ্গে এক অদ্ভূত বন্ধুত্ব রয়েছে উত্তর কোরিয়ার এক নায়ক কিম জং উনের।

কিভাবে এই অতিমানবীয় বন্ধুত্ব তৈরি হলো বিপরীতমুখি দুই দেশের দুই মেরুর মানুষের মধ্যে? একদিকে কিম জং উন হচ্ছে কম্যুনিস্ট উত্তর কোরিয়ার এক নায়ক। অন্যদিকে ডেনিস রডম্যান হচ্ছেন মার্কিন বাস্কেটবল তারকা। এ দু’জনের মধ্যে প্রগাড় বন্ধুত্ব নিয়ে গবেষণার কমতি নেই।

মূলতঃ বাস্কেটবলই বিপরীত মেরুর এই দুই মানুষকে এক করে দিয়েছে। তবে তাদের বন্ধুত্বের এক গোপন রহস্য জানালো মাদ্রিদ ভিত্তিক বিখ্যাত ক্রীড়া দৈনিক মার্কা। সেই গোপন রহস্য হচ্ছে- কিম জং উনের সঙ্গে ডেনিস রডম্যানের বন্ধুত্বের ভিত্তিই হচ্ছে মদ, নারী এবং কারওক। কারাওক হচ্ছে, নাইট ক্লাবে ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজের সঙ্গে ঠোট মিলিয়ে গান গাওয়া।

মার্কার রিপোর্টেই লেখা হয়েছে, কিম জং উনের সঙ্গে ডেনিস রডম্যানের বন্ধুত্ব নিঃসন্দেহে এক অদ্ভূত ঘটনা। তবে তাদের এই বন্ধুত্ব গড়ে উঠেছে মূলতঃ মদ, নারী এবং কারওককে ভিত্তি করেই।

উত্তর কোরিয়ান নেতার দুর্বলতার জায়গা হচ্ছে বাস্কেটবল। তিনি এই খেলাটি খুব পছন্দ করেন। কিন্তু কেউ হয়তো কল্পনাই করতে পারেনি যে, এই একটি খেলাকে কেন্দ্র করেই যুক্তরাষ্ট্রের বাস্কেটবল তারকা এবং কুচক্রি টাইপের চরিত্রের অধিকারী ডেনিস রডম্যানের সঙ্গে তার ভালো বন্ধুত্ব গড়ে উঠবে!

Kim jong Un

মাইক টাইসনের সঙ্গে এক রেডিও সাক্ষাৎকারে এসে কিম জং উনের সঙ্গে বন্ধুত্বের রহস্য ফাঁস করেন ডেনিস রডম্যান। সেই বন্ধুত্বের শুরুর গল্পটা জানাতে গিয়ে রডম্যান বলেন, ‘আমাদের সেই বন্ধুত্ব শুরু হয়েছিল একটি নাইট পার্টিতে। সেখানে ভদকা পরিবেশন করা হয়েছিল। একই সঙ্গে চলছিল কারাওক। সেই পার্টিতে নারীও ছিল অতিথিদের মনোরঞ্জনের জন্য।’

উত্তর কোরিয়া সফর নিয়ে রডম্যান বলেন, ‘আমি উত্তর কোরিয়া গিয়েছিলাম তার (কিম জং উনের) একটি অটোগ্রাফ নিতে এবং প্রীতি বাস্কেটবল ম্যাচ খেলতে। আমি আসলে সেই দেশটি সম্পর্কে কিছুই জানতাম না (একটু ভয়ও ভেতরে ভেতরে কাজ করছিল)। তবে, আমি সেখানে গেলাম এবং দারুণ নিরাপত্তা পেলাম। পুরোপুরি সুরক্ষিত হয়েই ফিরে এসেছি বলতে গেলে।’

পরের ঘটনা ছিল রডম্যানের জন্য আরেকটু বিস্ময়কর। রীতিমত অবাক হওয়ার পালা। তিনি বলেন, ‘আমি যখন ফিরে আসার জন্য প্লেনে উঠতে যাবো, দেখি আমার জন্য লাল গালিচা বিছানো। এটা ছিল অসাধারণ এক অনুভুতি।’

রডম্যান ভেবেছিলেন এই লাল গালিচা তার জন্য নয়। বরং, এই আয়োজন দেখে অবাকই হলেন তিনি। রডম্যান বলেন, ‘প্রায় ২২ হাজার উত্তর কোরিয়ান দাঁড়িয়েছিল আমাকে বিদায় দেয়ার জন্য। তারা সবাই হাততালি দিচ্ছিল।’

ডেনিস রডম্যান এ নিয়ে বিস্ময় চেপে রাখতে না পেরে জিজ্ঞাসাই করে বসেন। তখন উপস্থিত লোকজনের মধ্য থেকে নেতা গোছের একজন এসে বললেন, ‘না, অন্য কারো জন্য নয়। এই আয়োজন কিন্তু আপনার জন্যই এবং এটা হচ্ছে কিম জং উনের পক্ষ থেকে।’

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY