করোনার কঠিন সময়ের মাঝেই ‘দারুণ সুযোগ’ দেখছেন মেসি

0
20
যে কারণে নিজ দেশ আর্জেন্টিনায় থাকতে ভয় পান মেসি
যে কারণে নিজ দেশ আর্জেন্টিনায় থাকতে ভয় পান মেসি

বিশ্বব্যাপী মহামারী আকার ধারণ করেছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। এরই মধ্যে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়ে গেছে দেড় লাখ, মারা গেছে প্রায় ছয় হাজারের কাছাকাছি মানুষ। এমতাবস্থায় বিশ্বের বড় বড় সব দেশেই জারি করা হয়েছে জরুরি অবস্থা। ফলে স্বাভাবিকভাবেই বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনে নেমে এসেছে স্থবিরতা।

বিশেষ করে ইউরোপিয়ান ফুটবলের প্রায় সব লিগ ও টুর্নামেন্ট স্থগিত করা হয়েছে। প্রায় তিন সপ্তাহ পিছিয়ে দেয়া হয়েছে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের সব খেলা। এছাড়া স্প্যানিশ লা লিগা, ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ, ইতালিয়ান সিরি আ’সহ প্রায় সব লিগই এখন স্থগিত।

অথচ সবকিছু স্বাভাবিক থাকলে বছরের এ সময়টাতে ব্যস্ততম সময় কাটে ফুটবলারদের। চ্যাম্পিয়নস লিগ, ঘরোয়া লিগ, আন্তর্জাতিক সূচি- সবমিলিয়ে দম ফালানোর ফুরসৎও মেলে না সেভাবে। কিন্তু এবার বদলে গেছে সব। খেলা তো নেই, উল্টো করোনা পরিস্থিতির কারণে একপ্রকার গৃহবন্দী সময়ই কাটছে বিশ্বের প্রায় সব দেশের ক্রীড়াবিদদের।

এতে অবশ্য খুব একটা খারাপ লাগছে না বিশ্বের অন্যতম সেরা ফুটবলার লিওনেল মেসির। তিনি বরং করোনার বর্তমান পরিস্থিতিকে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটানোর দারুণ এক সুযোগ হিসেবেই দেখছেন। তবে অন্য সবার মেসিও উদ্বিগ্ন এ বিশ্ব মহামারীর ব্যাপারে। যা তিনি প্রকাশ করেছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইন্সটাগ্রামে।

Messi

নিজের দুই ছেলে মাতেও মেসি ও সিরো মেসির সঙ্গে একটি ছবি আপলোড করে মেসি লিখেছেন, ‘সময়টা সবার জন্যই কঠিন। আশপাশে কী হচ্ছে তা নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন সময় কাটাচ্ছি। অনেকেই খুব কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন। সবচেয়ে কঠিন অবস্থায় আছেন, তাদের জায়গায় নিজেদের কল্পনা করে সবাইকে সাহায্য করতে চাই আমরা। কেউ হয়তো নিজেই আক্রান্ত, কারও হয়তো পরিবার বা বন্ধু আক্রান্ত।

অনেকেই এই কঠিন সময়ে সামনের সারিতে দাঁড়িয়ে লড়ছেন, হাসপাতালে বা স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোতে সেবা দিচ্ছেন। সৃষ্টিকর্তা তাঁদের সবাইকে আরও শক্তি দিন।

স্বাস্থ্যই সবসময় প্রাধান্য পাওয়া উচিৎ। এটা একটা অন্যরকম সময় চলছে। আমাদের সবাইকে অবশ্যই স্বাস্থ্য সংস্থা এবং স্থানীয় প্রশাসনের নির্দেশনা মেনে চলতে হবে। এটি করলেই আমরা বর্তমান পরিস্থিতির সঙ্গে লড়তে পারবো।

এখনই সময় এসেছে দায়িত্ববান হওয়ার। এই সময়টাতে নিজ বাড়িতেই থাকুন। এটা বরং আপনার জন্য দারুণ সুযোগ ভালোবাসার মানুষদের সঙ্গে সময়টা উপভোগ করার, যে সুযোগটা সব সময় পাওয়া যায় না। সবাইকে ভালোবাসা, আশা করি শিগগিরই আমরা এই পরিস্থিতিটা কাটিয়ে উঠতে পারব।’

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY